Saturday, 20 July 2019

মংডু,আরাকান।পুলিশ ও লুন্টিন মংডূ শহরে রোহিঙাদের উপর হয়রানী বৃদ্ধি করছে বলে জানান একজন স্কুল শিক্ষক যিনি তার নাম প্রকাশে
অনিচ্ছা প্রকাশ করেন।

"গত ২১ সেপ্টেম্বর ,এক দল পুলিশ মংডুর বলি বাজার থেকে আবুল হুসেন এর পুত্র আলি জুহর(৪০),যিনি ৫ নং এরিয়ার লনেদন
গ্রামের বাসিন্দা তাকে গ্রেফতার করেন এই অভিযোগে যে তিনি জুন ৮,২০১২ এর দাঙ্গায় জড়িত ছিলেন।"
কিন্তু তাকে ২২ সেপ্টেম্বর মংডূ পুলিশ স্টেশনে পাঠানো হয় আরো অনেক অভিযোগ দিয়ে।এর পূর্বে ২০১২ সালে তাকে একবার পুলিশ
একই অভিযোগে গ্রেফতার করেছিল ,কিন্তু তখন ৫০০০০০ ক্যত প্রদানের পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।যদিও তার থেকে বিচারক
১০ মিলিয়ন ক্যত চেয়েছিল মুক্তির জন্য।তাকে একই অভিযোগে দুইবার গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান একজন নিকটাত্নীয়।
এছাড়া আগস্ট এর ১১ তারিখে খায়রুল আমিন(৩৫),পিতাঃসৈয়দ উল্লাহ,যিনি হাতিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা তাকে বাউলি বাজার এর
পুলিশ এই অভিযোগে গ্রেফতার করে তিনি ২০১২ এর দাঙায় জড়িত এবং তাকে আরো অনুসন্ধান এর জন্য মংডু জেল এ পাঠানো
হয়।কিন্তু এর পর থেকে তার আর কোন খোঁজ পাওয়া যায় নি।
পুলিশ বলছে যে ,২০১২ এর দাঙায় যা রোহিঙা ও রাখাইনদের মধ্যে হয়েছে সেখানে ৫২ জন জড়িত ছিল এবং তাদের মধ্যে কিছু
বাংলাদেশে চলে যায় আটকের ভয়ে এবং আরো ২০ জন্য আরাকানে ভীতির সাথে দিন কাটাচ্ছে।
যদিও দাঙার সময়সীমা অনেক আগেই শেষ,পুলিশ ও লুন্টিন এখনও রোহিঙ্গাদের খুঁজছে এবং তা মংডুর দক্ষিন অংশে ঘটলেও
পুলিশ আটক করছে উত্তর মংডু থেকে বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন তরুন।
যখন পুলিশকে এই ঘটনার ব্যাপারে জানানো হয় তারা এই ব্যাপারে কোন জবাব দেয় নি।