Saturday, 18 November 2017

চট্টগ্রাম,বাংলাদেশ। ইউএস গতকাল বাংলাদেশকে অনুরোধ করেছে রোহিঙ্গাদের
প্রবেশাধিকার দিতে যাতে তারা বার্মার দাঙ্গা থেকে রক্ষা পেতে পারে।

এইছাড়া তারা শরনার্থী ক্যাম্পে এনজিও সমূহকে কাজ করতে দিতে অনুরোধ করেছে
এবং তাদের পুশ ব্যাক করতে মানা করেছে।
উক্ত অনুরোধ বাংলাদেশে আসা ইউ এস এর বার্মা বিষয়ক  সিনিয়র উপদেষ্টা জুদিথ
চেফকিন বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় এর জৈষ্ঠ কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনার সময়
করেন।
ঢাকা এটা নিশ্চিত করছে তারা বার্মার সাথে কথা চালিয়ে যাবে এবং শরনার্থী ও রোহিঙ্গা
যারা অনিবন্ধিত তাদের ইস্যু দূর করার চেষ্টা করবে।
পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক একটি দলের নেতৃত্ব দেন যেখানে ইউএন,দক্ষিন পূর্ব এশিয়া
ও আমেরিকার ডিরেক্টর জেনারেলরা ছিলেন।
বাংলাদেশ কক্সবাজারে তিনটি বিদেশী এনজিও এর কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে এছাড়া
২০১২ থেকে রোহিঙ্গাদের প্রবেশ করতে বাঁধা দিচ্ছে।
দুইটি ক্যাম্পে ৩০০০০ নিবন্ধিত শরনার্থী আছে এছাড়া আরো ৩০০০০০ শরনার্থী এখানে
বাস করছে অনিবন্ধিত ক্যাম্পে।
ইউ এস কর্মকর্তা বাংলাদেশকে ধন্যবাদ দেন রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য এবং তাদের
যারা দাঙ্গা থেকে বাঁচার জন্য আসছে তাদের ফেরত পাঠাতে মানা করেন।এছাড়া চেফকিন
এনজিওদের যাদের অভিজ্ঞতা আছে তাদের কাজ করতে অনুমতি দিতে অনুরোধ করেন।
চেফকিন এক ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশে আসেন ও গতকাল বার্মাতে ফেরত পাঠান, ইউএস বাংলাদেশ
সরকারকে ইউএনএইচসিআর এর মাধ্যমে সাহায্য পাঠান।
বাংলাদেশের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন," রোহিঙা শরনার্থীরা মর্যাদার সাথে
আচরণের যোগ্য এবং বাংলাদেশ সরকার বার্মার সাথে কথা বলবে যাতে রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফেরত পাঠানো
হয়। "
তিনি আরো বলেন," শেখ হাসিনার নতুন সরকার এটির পররাষ্ট্র বিষয়ক নীতি চালু রাখবে যাতে মিয়ানমারের
সাথে যোগাযোগ বজায় থাকে ও আঞ্চলিক বানিজ্যের প্রসার ঘটে। "