Friday, 20 September 2019

২০ বছরের মধ্যে হতে যাওয়া প্রথম নির্বাচনে কতৃপক্ষ গতকাল থেকে মংডুতে তাদের সম্পুর্ন ক্ষমতা নিয়ে  মাঠে নেমেছে,বলেছে এক স্থানীয় ব্যক্তি।
" আপনি প্রতি সড়কের মোড়ে দাঙ্গা পুলিশ দেখবেন,এবং দু ট্রাক ভর্তি নিরাপত্তা বাহিনী  টহল দিচ্ছে "।


তিনি আরও যোগ করেন পুলিশ যারা ওই সমস্ত রাস্তা দিয়ে যাচ্ছে তাদের প্রত্যেককে জিজ্ঞাসা করছে একই সাথে মোটরবাইক চালকদেরও পরীক্ষা করছে।
"মংডু এর অধিবাসীরা এই সিকিঊরিটি  চেক এর প্রতি ক্ষোভ জানিয়েছে কারণ তারা অধিবাসী এবং তারা শহরে যাচ্ছে তাদের সামাজিক ও পারিবারিক কারণে," বলেছেন একজন এনডিপিডি কর্মকর্তা,
"আমরা এইটিকে হুমকি হিসেবে মনে করছি তাদের জন্য যারা আমাদের দলকে সমর্থন করতে চায়"।
অনেক অধিবাসী  সরকার তথা সামরিক জান্তা সমর্থিত ইউএসডিপি এর  কর্মকর্তা ও সহযোগীদের হুমকির কারণে  ইচ্ছা থাকা স্বত্তেও এনডিপিডি এর প্রার্থীদের সমর্থন দিতে ভয় পাচ্ছেন।
বার্মা সীমান্তরক্ষী বাহিনী নাসাকার সদস্যদের মংডু শহরের  বিভিন্ন স্থানে মোতায়েন করা হয়েছে বলেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অধিবাসী।
একজন স্থানীয় গ্রামের  মোড়ল জানিয়েছেন,নাসাকা সদস্যদের ৩ জন এর দল গঠন করে গ্রামে টহল দিতে বলা হয়েছে যদিও কোনরূপ গ্রামের লোকদের সাথে কোনকিছুতে জড়াতে মানা করা হয়েছে।
৭ নভেম্বর এর নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দল সমূহের মধ্যে অস্থিরতা বাড়ছে এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের কারণ হিসেবে এইটি  ব্যবহার করা হতে পারে,বলেছেন এক অধিবাসী।
মামুন রশীদ নামে একজন এনডিপিডি সমর্থককে সপ্তাহের শুরুতে একটি অবৈধ মোবাইল রাখার দায়ে গ্রেফতার করা হয় এবং এখন তিনি নাসাকা হেফাজতে আছেন।
নাসাকার সহযোগী সৈয়দ আলম ১ তারিখ দুজন যুবককে মারধোর করে কারণ তারা এনডিপিডি এর লোগোযুক্ত টিশার্ট পরেছিল।
এছাড়া ৪ নং ওয়ার্ডে কারফিঊ জারি করা হয়েছে এবং লোকদের ঘরের বাইরে রাত ৯টার পর যেতে ও জমায়েত করতে নিষেধ করা হয়েছে,বলেছে একটি স্থানীয় নির্বাচনী পর্যবেক্ষক সংস্থা এবং এইটি অন্যান্য এলাকাতেও করা হবে ।