Monday, 09 December 2019

মংডু,আরাকান। উ কি সেন, যিনি মংডু শহর কর্মকর্তা তিনি গ্রামপ্রশাসকদের আজ হুমকি দ্যেছে যাতে তারা স্বাক্ষরকৃত কাগজ দেন
এই উল্লেখ করে তারা রোহিঙ্গাদের জাতীয়তাবাদ হিসেবে স্বীকৃতি দিবে না, বলে জানান হালু বলে একজন গ্রাম প্রশাসক অফিস সদস্য।

উ কি সেন নিরাপত্তা বাহিনীসহ ৬ নং এরিয়াতে যান এবং তিনি সেখানে ১১ টি গ্রামের গ্রাম প্রশাসকদের দেখে পাঠান যাতে তার অনুরোধ তারা
মেনে চলে এবং যাতে রোহিঙ্গারা জাতিস্বত্তা হিসেবে নিবন্ধন করতে না পারে।
গ্রামবাসীরা গ্রাম প্রশাসকদের বলেছে যদি তারা রোহিঙ্গা হিসেবে নিবন্ধন করতে পারে তবেই তারা নিবন্ধন করবে না হলে তারা নিবন্ধন করবে না।
রোহিঙ্গাদের হুমকি দিয়ে তাদের কতৃপক্ষ এই আদমশূমারীতে যোগ দিতে বাধ্য করছে-বলে জানান হালিম নামের একজন মানবাধিকার পর্যবেক্ষক।
তিন জন রোহিঙ্গা-জাফর ও তার স্ত্রী, ওসমান উভয়ের পিতা আব্বাস এবং সেজার গ্রামের বাসিন্দা তারা তাদের জাতীয়তা হিসেবে বাঙ্গালী লিখেছে এবং
তারা কতৃপক্ষের সহযোগী, এছাড়া আরো দুইজন মহিলা যাদের পিতা ও প্রপিতামহ রাখান ছিল, তারা তাদের পরিচয় দিয়েছে রাখাইন মুসলিম হিসেবে।
আদমশুমারী আইন অনুযায়ী, কেউ হুমকি বা জোরপুর্বক তথ্যপ্রদানকারীকে কোন তথ্য দিতে বাধ্য করবে না, তবে শহর প্রশাসক এটি লঙ্ঘন করেছে
কিন্তু এই ব্যাপারে কেউ ব্যবস্থা নিচ্ছে না। একইভাবে আর্টিকেল ১৭/এ তে উল্লেখ আছে কোন সুপারভাইজার বা তথ্যসংগ্রহকারী তার দ্বায়িত্ব অগ্রাহ্য করতে
পারবে না। কিন্তু প্রায় সব সুপারভাইজাররাই এটি লঙ্ঘন করেছে। উক্ত ১১ গ্রাম হলঃ পিন প্রে, পং জার, পিন্ত হিপু চাং, মিংগালাগাই, লাবাজা, কাউং চং
প্রভৃতি।
মংডুতে প্রায় ৪০০ আর্মি গ্রামের আশে পাশে ঘিরে রেখেছে যাতে রোহিঙ্গারা তাদের মত করে কাজ করে। এছাড়া কিছু রাখাইন উত্তর মংডুতে
স্থানান্তর হচ্ছে বলে জানান, নাগাকুরা গ্রামের একজন ব্যবসায়ী।